আগামীকাল শুরু হচ্ছে এশিয়া কাপের ১৪তম আসর। ২৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চলবে ৬ দলের এশিয়ার শ্রেষ্ঠত্বের লড়াই। আগের ১৩ আসরে সর্বোচ্চ ৬ বার শিরোপা ঘরে তোলে ভারত। আর ৫টি শিরোপা নিয়ে পরের অবস্থানে থাকলেও, ব্যক্তিগত অর্জনে সবার ওপরে শ্রীলঙ্কা।

ক্রিকেটে এশিয়া অঞ্চলের নিয়ন্ত্রক সংস্থা, এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল- এসিসি গঠনের পরের বছরই শুরু হয় এশিয়ার শ্রেষ্ঠত্ব লড়াইয়ের আসর এশিয়া কাপ। শারজায় ১৯৮৪ সালের প্রথম আসরসহ মোট ১৩ আসরে ৬বারই শিরোপা ঘরে তোলে ভারত।

৫টি শিরোপা নিয়ে দ্বিতীয় শ্রীলঙ্কা ও ২টি নিয়ে তৃতীয় পাকিস্তান। শিরোপা না পেলেও দু’বার রানারআপ হিসেবে এশিয়ার চতুর্থ সেরা দল বাংলাদেশ।

ব্যাটিং-বোলিং, দুই ডিপার্টমেন্টেই ব্যক্তিগত অর্জনে সবার ওপরে লঙ্কানরা। ২০০৮ এর আসরে সনাথ জয়সুরিয়ার করা ৩৭৮ রান এখন পর্যন্ত যেকোন আসরের সর্বোচ্চ সংগ্রহ। এই লঙ্কানেরই ১২২০ রান এশিয়া কাপের সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত সংগ্রহ। ১ হাজার ৭৫ রান নিয়ে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক আরেক লঙ্কান কুমার সাঙ্গাকারা।

প্রতিযোগিতায় ২৪ ম্যাচে ৩০ উইকেট নিয়ে শীর্ষ উইকেট শিকারি শ্রীলঙ্কার স্পিনার মুথিয়া মুরালিধারন। আর মাত্র ৮ ম্যাচে ২৬ উইকেট নিয়ে পরের অবস্থানে আরেক লঙ্কান স্পিনার অজান্তা মেন্ডিস। ১ আসরে সর্বোচ্চ ১৭টি উইকেট নেয়ার রেকর্ডও মেন্ডিসের।

আগের ১৩ আসরের ১২টি ছিলো ওয়ানডে ফর্মেটে। ২০১৬ সালে শেষ আসর টি-টোয়েন্টি ফর্মেটে হলেও, এশিয়া কাপ আবারও মাঠে গড়াবে ওয়ানডে ফর্মেটে। এশিয়া কাপের একমাত্র টি-টোয়েন্টি আসরের চ্যাম্পিয়ন ভারত আর রানারআপ হয় বাংলাদেশ।

 

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author

Leave a comment