মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে ত্রাণ বিতরণে সরকারের বাধা যুদ্ধাপরাধের শামিল বলে মন্তব্য করেছে মানবাধিকার সংগঠন ফর্টিফাই রাইটস।  এদিকে, রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর প্রকাশিত বইয়ে, অন্তত ৩টি ভুয়া ছবি ব্যবহার করা হয়েছে। রয়টার্সের অনুসন্ধানে উঠে এসেছে এ তথ্য।

গত বছরের ২৪ আগস্টে কয়েকটি পুলিশ চেকপোস্টে রোহিঙ্গা বিদ্রোহীরা হামলা চালায়, এমন অভিযোগের পরের দিন থেকে রাখাইনে মিয়ানমার সেনাবাহিনী অভিযান পরিচালনা করে। সহিংস অভিযানেরমুখে অন্তত সাত লাখ রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়। সহিংসতার শিকার আরো চার লাখ রোহিঙ্গা আগে থেকেই কক্সবাজারে অবস্থান করছে।

রাখাইন রাজ্যে বাস্তুচ্যুত রোঙ্গিাদের সহায়তায় এগিয়ে আসে বিশ্ব। তবে মিয়ানমার সরকার রাখাইনে ঢুকতে দেয়নি কাউকে। এটিকে ‘যুদ্ধাপরাধের শামিল’ বলে মন্তব্য করেছে মানবাধিকার সংগঠন ফর্টিফাই রাইটস। ইয়াঙ্গুনে এক সংবাদ সম্মেলনে মানবাধিকার সংগঠনটি এ মন্তব্য করে।

সংগঠনটি বলছে, মানবাধিকারের অপব্যবহারের জন্য দায়ীদের বিচারের মুখে দাঁড় করাতে আন্তর্জাতিক চাপ জরুরি। এ ছাড়া কাচিন রাজ্যে বাস্তুচ্যুত মানুষকে মানবিক ত্রাণ থেকে বঞ্চিত করে অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করছে।

এদিকে, রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে গত জুলাইতে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর প্রকাশিত বইয়ে, অন্তত ৩টি ভুয়া ছবি ব্যবহার করা হয়েছে। রয়টার্সের অনুসন্ধানে উঠে এসেছে এ তথ্য। ১১৭ পৃষ্ঠার বইয়ে ৮০টি ছবি ব্যবহার করা হয়। এর মধ্যে ৮টি ছবি রোহিঙ্গা মুসলমানদের। যার ৩টিই নকল। এতে ১৯৭১ সালে বাংলাদেশে পাকিস্তান হানাদার বাহিনীর নৃশংসতার ছবি রয়েছে।

 

 

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author

Leave a comment