সাভারের হেমায়তেপুরে চামড়া শিল্প নগরীর বিষাক্ত বর্জ্যে হুমকিতে পড়েছে জনস্বাস্থ্য। বিপন্ন হচ্ছে পরিবেশ। মরতে চলেছে ধলেশ্বরী নদী। অথচ হাজারীবাগ থেকে ট্যানারি কারখানা স্থানান্তরের আগে বারবারই বলা হয়েছিল, হেমায়েতপুর সব সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করা হয়েছে।

পরিকল্পিত বলা হলেও সাভারের হেমায়েতপুর ট্যানারি শিল্পনগরীতে তার ছিটেফোঁটাও নেই। পুরোপুরি চালু হয়নি কেন্দ্রীয় বর্জ্য পরিশোধনাগার। চারটি মডিউলের মধ্যে দুটি দিয়ে চলছে পরিশোধন কাজ। কারখানা সংশ্লিষ্ট বেশিরভাগ ড্রেনের মুখই বন্ধ। ঢাকনা নেই ম্যানহোলে। কারখানার ক্ষতিকর রাসায়নিক পাইপ দিয়ে সরাসরি ফেলা হচ্ছে ধলেশ্বরী নদীতে।

ট্যানারি পল্লীর রাস্তায় জমে আছে নোংরা ও দুর্গন্ধযুক্ত পানি। ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে আছে পশুর উচ্ছিষ্ট। যান চলাচল তো দূরের কথা, কিছু রাস্তায় পায়ে হাঁটায় দায়। শ্রমিকরা কাজ করছেন অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে। নেই স্বাস্থ্য সুরক্ষার ব্যবস্থা।

সড়কের এমন অবস্থার জন্য হতাশা জানালেন শিল্প সচিব। শুধু শ্রমিক নয়, ট্যানারির বর্জ্যে অসুস্থ হয়ে পড়ছেন আশপাশের বাসিন্দারা।

পরিবেশ ও জনস্বাস্থ্য রক্ষার পাশাপাশি চামড়া খাতের উন্নয়নে অবিলম্বে হেমায়েতপুর ট্যানারি শিল্পনগরীকে আধুনিকায়নের দাবি জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

 

 

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author

Leave a comment