ঈদযাত্রার তৃতীয় দিনেও শিডিউল বিপর্যয়ের কবলে পড়েছেন ট্রেনের যাত্রীরা। কমলাপুর রেলস্টেশন থেকে প্রতিটি ট্রেনই ছেড়েছে নির্ধারিত সময়ের দেড় থেকে দুই ঘন্টা পর। আর সড়ক-মহাসড়কে যানজটের কারণে যাত্রীর এখন ট্রেনমুখী বলে জানালেন বাস কাউন্টার ম্যানেজাররা। সদরঘাট লঞ্চঘাটেও ছিল না যাত্রীদের তেমন ভিড়। এদিকে, সড়ক পথে কোন ধরনের যানজট নেই বলে আবারও দাবি করলেন সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

রাজধানীর কর্মব্যস্ততা ছেড়ে বাড়ি ফেরা মানুষের ভিড় ভোর থেকেই বাড়তে থাকে কমলাপুর রেল স্টেশনে। দেড় থেকে দুই ঘন্টা বিলম্বে ছেড়েছে নীল সাগর, একতা, সুন্দরবন এবং রংপুর এক্সপ্রেসসহ বেশ কিছু ট্রেন।

যাত্রীর অতিরিক্ত চাপ থাকায় ট্রেন ছাড়তে বিলম্ব হচ্ছে বলে জানান স্টেশন ম্যানেজার সীতাংশু চক্রবর্তী। এদিকে, সড়ক পথে ভোগান্তির কারণে বাস কাউন্টারগুলোতে নেই যাত্রীদের ভিড়। যানজট এড়াতে যাত্রীরা ট্রেন বেছে নেয়ায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে জানান কাউন্টার ম্যানেজাররা।

পরিস্থিতি দেখতে গাবতলী বাসটার্মিনালে যান সড়ক পরিবহনমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। বিগত বছরের তুলনায় এবার সড়কপথের যাত্রা স্বস্তিদায়ক বলে দাবি করেন তিনি।

সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালেও ছিল না দক্ষিণাঞ্চলগামী যাত্রীদের চাপ। লঞ্চঘাটে পন্টুনের জোড়া ছুটে যাওয়াসহ নানা অব্যবস্থাপনার অভিযোগ করেন যাত্রীরা।

 

 

 

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author

Leave a comment