কোনভাবেই থামছে না সড়কে চাঁদাবাজি। কোরবানির পশুকে ঘিরে আরো সক্রিয় হয়ে উঠেছে পুলিশ ও বিভিন্ন সংগঠন। চেকপোষ্টের আড়ালে সড়কের বিভিন্ন স্থানে চলছে কোরবানির পশুবোঝাই ট্রাকে পুলিশের চাঁদাবাজি। আবার স্থানে স্থানে বিভিন্ন সংগঠন ও প্রতিষ্ঠানের নামেও চাঁদা আদায়ের অভিযোগ রয়েছে।  রাজধানীতে পৌছানোর আগ পর্যন্ত শুধু ৫ থেকে ৬ স্পটেই পুলিশকের ধাক্কা সামলাতে হচ্ছে পশু ব্যাপারিদের। একইভাবে হয়রানির শিকার হচ্ছেন ট্রাক চালকরাও।

দরজায় কড়া নাড়ছে কোরবানির ঈদ। দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে ট্রাকভর্তি পশুও আনা হচ্ছে রাজধানীতে। ঢাকা উত্তর দক্ষিণ সিটি করপোরশনের নির্দিষ্ট ২০টি অস্থায়ী পশুরহাটে  বেচাকেনাও শুরু হয়েছে।

এসব পশু রাজধানীতে ঢুকতেই ঘাটেঘাটে চাঁদাবাজীর শিকার হচ্ছেন ব্যবসায়ীরা। সড়কে পুলিশ ও বিভিন্ন সংগঠনের নামে চাঁদাবাজির পাশাপাশি যানজটসহ নানা ধরণের ভোগান্তিতে অতিষ্ট তারা। রাজধানীর অন্যতম প্রবেশধার গাবতলীতে পৌছেই এসব অভিযোগ করেন বেপারিরা।

আবার কাগজপত্র ঠিক থাকলেও পুলিশের চাঁদাবাজি থেকে রেহাই মিলছে না ট্রাক চালকদেরও। চেকপোস্টের আড়ালে এ কারবার চালাচ্ছে পুলিশ।

এদিকে, মধ্য রাতেও  গাবতলীতে কোরবানির পশু কিনতে আসছেন কেউ কেউ। গরুতে গত বছরের তুলনায় এবার ১০ হাজার টাকা বেশি বলে অভিযোগ করেন ক্রেতারা।

 

 

 

 

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author

Leave a comment