স্বাধীন বাংলাদেশকে পাকিস্তানী ভাবধারায় নিয়ে যেতে মার্কিন সম্রাজ্যবাদের অনুচর জিয়া-মোশতাক চক্র বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছিলো… এমনটাই বললেন ঢাকা শহর ছাত্রলীগের তৎকালীণ সহ-সভাপতি, বর্তমানে সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কামাল আহমেদ মজুমদার। পঁচাত্তরের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে তিনি বললেন, বঙ্গবন্ধু হত্যার পর আওয়ামী লীগের তৎকালীণ নেতাদের নিস্ক্রিয়তার কারণেই স্বাধীনতা বিরোধীরা ক্ষমতায় আসতে পেরেছিলো।

ঘাতকের নির্মম বুলেটে স্বপরিবারে নিহত হন বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। বিদেশে অবস্থান করায় বেঁচে যান তার দুই মেয়ে শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা।

বঙ্গবন্ধু হত্যার পর খুনি চক্রের বিরুদ্ধে জনমত তৈরির চেষ্টা করেছিলেন তৎকালীন পলিটিক্যাল মোটিভেশন সেলের প্রধান ও ছাত্রলীগ নেতা কামাল আহমেদ মজুমদার।

দলের সিনিয়র নেতাদের নিস্ক্রিয়তায় সেই উদ্যোগ ভেস্তে যায়। আওয়ামী লীগের এ জ্যেষ্ঠ নেতা স্মৃতিচারণে বলেন, সে সময়ে পরপর বেশ কয়েকটি সেনা অভ্যুত্থানের ঘটনা ঘটে। ফলে দীর্ঘদিন প্রবাসেই কাটাতে হয় বঙ্গবন্ধুর দুই মেয়েকে। ওই সময়ে দেশকে চালিত করা হয় মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বিপরীতে। মিথ্যাচার করা হয় বঙ্গবন্ধুর শাসনামল নিয়ে। ১৯৮১ সালে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের পর অবস্থার পরিবর্তন ঘটে।

আলহাজ কামাল আহমেদ মজুমদার, বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠায় ঐক্যবদ্ধ থাকতে দলীয় নেতা-কর্মিদের প্রতি আহ্বান জানান।

 

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author

Leave a comment