ঈদুল আযহায় ঘরমুখো মানুষদের জন্য ট্রেনের অগ্রিম টিকিটি বিক্রি হয়েছে বুধবার থেকে। তাই ১৮ আগস্টের অগ্রিম টিকিট বিক্রি হচ্ছে আজ বৃহস্পতিবার। কমলাপুর রেলস্টেশনের প্রতিটি কাউন্টারের সামনে টিকিট প্রত্যাশীদের দীর্ঘ লাইন ঠেকেছে স্টেশনের বাহিরের রাস্তায়।

যাত্রী ও রেলওয়ে কর্মকর্তারা বলছেন, অন্যান্য বছর ঈদের দুই-তিনদিন আগে যেরকম ভিড় হয় আজকের ভিড় তাকেও ছাড়িয়ে গেছে। যাত্রীদের ট্রেনের টিকিট পেতে ১০-১১ ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হচ্ছে।

টিকিটের জন্য আগের দিন সন্ধ্যা থেকেই লাইনে দাঁড়িয়ে থাকেন অনেকেই। তবে পরের দিন সকলে বা দুপুরের পর টিকিট হাতে পাওয়ার পর তাদের হাসি দেখে বুঝার উপায় নেই তারা সারারাত কতোটা কষ্ট করেছেন।

এ বিষয়ে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনের ম্যানেজার সীতাংশু চক্রবর্তী বলেন, ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রিতে যেন কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে সে লক্ষ্যে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীসহ রেলওয়ের নিজস্ব বাহিনী তৎপর রয়েছে। আমাদের সম্পদ সীমিত। এই সীমিত সম্পদের মধ্যেই আমরা চেষ্টা করছি। সকাল থেকেই সবাই সুশৃঙ্খভাবে লাইনে দাঁড়িয়ে টিকিট সংগ্রহ করছেন।

আগামী ১০ আগস্ট ১৯ আগস্টের অগ্রিম টিকিট,১১ আগস্ট ২০ আগস্টের অগ্রিম টিকিট ও ১২ আগস্ট দেওয়া হবে ২১ আগস্টের অগ্রিম টিকিট দেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

একইভাবে আগামী ১৫ আগস্ট থেকে ঢাকা ফেরত আসা যাত্রীদের জন্য ট্রেনের আগাম টিকিট বিক্রি শুরু হবে। ১৬, ১৭, ১৮ ও ১৯ আগস্ট যথাক্রমে পাওয়া যাবে ২৫, ২৬, ২৭ ও ২৮ আগস্টের টিকিট।

এবার প্রতিদিন কমলাপুর রেলস্টেশন থেকে সারাদেশের উদ্দেশে মোট ৬৬টি ট্রেন ছেড়ে যাবে। এর মধ্যে ৩২টি আন্তঃনগর, বাকিগুলো মেইল ও স্পেশাল সার্ভিস। তার সঙ্গে আরো ৯ জোড়া স্পেশাল ট্রেন যোগ হবে। ট্রেনের ৬৫ শতাংশ টিটিক দেওয়া হচ্ছে কাউন্টার থেকে। বাকি ৩৫ শতাংশের ২৫ শতাংশ অনলাইন ও মোবাইলে। ৫ শতাংশ ভিআইপি ছাড়াও রেল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য বরাদ্দ রয়েছে ৫ শতাংশ।

 

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author

Leave a comment