সরকারী হজ্ব ব্যবস্থাপনায় নির্ধারিত খরচের চেয়েও কম টাকায় হজ্ব পালনের লোভ দেখিয়ে যাত্রীদের ভোগান্তিতে ফেলেছে কিছু এজেন্সি। এমন ভূইফোর এজেন্সিগুলোকে এবার রক্ষার চেষ্টা করছেন হজ্ব এজেন্সি বাংলাদেশ, হাব-এর মহাসচিব। বলছেন,  অবৈধ কর্মকাণ্ডের জন্য এজেন্সি নয়, দায়ি মধ্যস্থকারীরা। ক্যাম্প পরিচালক জানালেন, ৭ আগস্টের পর ভিসা প্রক্রিয়া বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সৌদি দূতাবাস।

হাব সদস্যরা অনৈতিক আয় বাড়াতে অতিরিক্ত ৪ শতাংশ রিপ্লেসম্যান্ট নিয়েছে। কিন্তু তারপরও প্রায় ৪ হাজারেরও বেশি হজ্ব যাত্রীর সৌদি গমনে অনিশ্চিয়তা কাটেনি। এ সুযোগ কাজে লাগাতে আরও রিপ্লেসম্যান্টের আশায় আশকোনা হজ্ব ক্যাম্পে ধর্ণা দিচ্ছে এজেন্সি মালিকপক্ষ।

কেউ হজ্ব করতে না পারলে তার দায় কে নিবে… এমন প্রশ্নের উত্তরে অভিযোগের তীর এজেন্সিগুলোর দিকেই।  ভিসা পাওয়া না গেলেও ফ্লাইটের তারিখ জানিয়ে দু’দিন আগেই যাত্রীদের ক্যাম্পে নিয়ে আসা হয়েছে।

এসব অভিযোগ থেকে এজেন্সিগুলোকে বাঁচাতে চেষ্টা চালাচ্ছেন হাব মহাসচিব। সৌদি দুতাবাস আগামী সপ্তাহের পর ভিসা দেয়া বন্ধ করবে বলে জানা গেছে।

ক্যাম্প পরিচালক আশা করছেন, আগামী দু’সপ্তাহে সব যাত্রীই জেদ্দায় পৌছাতে পারবেন।

 

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author

Leave a comment