বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্ত এলাকায় কোন মাইন বসানো হয়নি, বলে দাবি করেছে মিয়ানমার বর্ডার গার্ড পুলিশ, বিজিপি। আগামীতে সীমান্তে মাইনের সন্ধান পেলে দ্রুত নিস্ক্রিয় করার প্রতিশ্রুতিও দেয় বাহিনীটি। পিলখানায় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ, বিজিবি ও বিজিপির উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধি দলের চারদিনের সীমান্ত সম্মেলন শেষে সকালে এসব কথা জানানো হয় বিজিপি’র পক্ষ থেকে। যদিও রোহিঙ্গা নির্যাতনের বিষয়ে মুখ খুলতে রাজি হয় নি বাহিনীটির কোন কর্মকর্তা।

মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নির্যাতনের মুখে গতবছর স্রোতের মতো বাংলাদেশে আসে রোহিঙ্গা। সেই সময়ে সীমান্ত এলাকাতেও দেখা দেয় উত্তেজনা। অভিযোগ রয়েছে মাইন বসিয়ে সীমান্তে আতংক ছড়ানোর চেষ্টা করেছে বিজিপি।

যদিও ঢাকায় অনুষ্ঠিত দু’দেশের সীমান্তবাহিনীর উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে গুরুত্ব পায় নি এ ইস্যু। যোথ বিবৃতি শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বিজিপি’র পক্ষ থেকে জানানো হয় মাইন বসানের বিষয়টি মিথ্যা।

সীমান্ত এলাকায় রোহিঙ্গারা নির্যাতনের স্বীকার হয় কিনা? এমন প্রশ্ন এড়িয়ে যায় মিয়ানমার বর্ডার পুলিশ। চারদিনের বৈঠকে সীমান্তে মাদক, অস্ত্র, নারী ও শিশু পাচারসহ আন্তঃসীমান্ত অপরাধ প্রতিরোধের বিষয়গুলো প্রাধান্য পায়। এছাড়া সম্প্রতি মিয়ানমার নাগরিকদের সীমান্ত অতিক্রমসহ সীমান্তে গুলিবর্ষণের ঘটনায় উদ্বেগ জানায় বাংলাদেশ।

 

 

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author

Leave a comment