চট্টগ্রামের বৃহত্তর হালিশহরে উদ্বেগজনকভাবে ছড়িয়ে পড়েছে পানিবাহিত রোগ। নতুন করে জন্ডিসে আক্রান্ত হয়েছে আরও ২২৮। এ নিয়ে জন্ডিস আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ৬২৪ জনে। প্রায় প্রতিটি ঘরেই এখন মিলছে পানিবাহিত রোগী। এ নিয়ে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে আশপাশের এলাকাতেও। এজন্যে বাসাবাড়ির মলমূত্র ও নোংরা পানির প্রবাহ উন্মুক্ত নালায় সরাসরি যুক্ত করে দেয়াকে দূষছে ওয়াসা। আর স্বাস্থ্য বিভাগ ও স্থানীয় বাসিন্দারা বলছেন ওয়াসার পানিই দূষিত।

পানি নিয়ে আতঙ্ক আর অনিশ্চয়তা, কোভাবেই পিছু ছাড়ছে না চট্টগ্রাম নগরীর হালিশহর এলাকার বাসিন্দাদের। দূষিত পানি ব্যবহারে প্রতিদিনই বাড়ছে হেপাটাইটিস-ই ও জন্ডিস রোগির সংখ্যা। গেল এক মাসেই সনাক্ত করা হয়েছে ৭ শতাধিক রোগি। বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি  আছে ২ শতাধিক। গেল কয়দিনে মারা গেছে ১০ জন। এভাবে একের পর এক মৃত্যু আর রোগি সনাক্তে আতংক ছড়িয়ে পড়েছে পুরো এলাকা জুড়ে।

ওয়াসার পানিতে দুর্গন্ধ পাওয়ার বিষয়টি জেলা সিভিল সার্জনকে অবহিত করেন স্থানীয়রা। আর সিভিল সার্জন জানান, শুধু ওয়াসা নয়, পানিবাহিত রোগ বাড়ার পেছনে স্থানীয়দের অসচেতনতাও দায়ি।

আর ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালকের দাবি, জলাবদ্ধতার কারণে সবগুলো ভূগর্ভস্থ পানির ট্যাংক ডুবে থাকে। আর সেখান থেকেই রোগ ছড়াচ্ছে।

হালিশহর এলাকায় প্রায় ৫ লাখ লোকের বসবাস। প্রয়োজনীয় পানির আকাল যেমন রয়েছে, তেমনি বর্ষা জুড়েই থাকে জলাবদ্ধতা, এ দিকেও কর্তৃপক্ষকে নজর দেয়ার দাবি স্থানীয়দের।

 

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author

Leave a comment