সরকারি জমি দখল করলে মন্ত্রী বা সংসদ সদস্যদেরও ছাড় দেয়া হবে না বলে হুশিয়ারী দিলেন গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন। রাজধানীর কালশী ও বাউনিয়া এলাকায় খাল ও খাস জমি দখল নিয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধে পাওয়া অভিযোগের বিষয়ে এমনটাই বললেন গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী। এলকাবাসীর অভিযোগ, শুধু খালই নয়… সরকারী সম্পত্তি দখল করে হাউজিং প্রকল্প করছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য। ভূমিদস্যু যেই হোক না কেন তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান  ।

দখলের দৌরাত্ন্যে রাজধানীর খালগুলো কালক্রমে হারিয়ে যেতে বসেছে। আর যেগুলো  টিকে আছে তার মধ্যে বাউনিয়া খাল অন্যতম। যা ক্রমশ মৃত্যুর দিকে এগুচ্ছে। মিরপুরের পল্লবী,কালশী,মিরপুর-১০ নম্বর ১৩ নম্বরও ১৪ নম্বর এবং মিরপুর ডিওএইচএস আবাসিক এলাকার পানি নিষ্কাশন নালা এ বাউনিয়া খালের সঙ্গে যুক্ত।

এটি গেল খাল দখলের কথা এবার ভূমি  দখলেরও যেন রীতিমত উৎসব বসেছে মিরপুরের বিভিন্ন এলাকায়।  সাইন বোর্ড ঝুলিয়ে সরকারী জায়গাকে নিজেদের মত করে দখল করে নিচ্ছেন  প্রভাবশালীরা।

সুইচ গেট ও বাউনিয়া খালের পাশেই মিরপুরের বস্তিবাসীদের জন্য ভাড়াভিত্তিক ফ্ল্যাট নিমার্ণ প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এ প্রকল্পের জায়গায় ছাড়াও অন্যান্য স্থাপনা অপসারণ করে হাউজিং নির্মাণের চেষ্টার কারণে এলাকাবাসীর অভিযোগের তীর স্থানীয় সংসদ সদস্যের দিকে।

এমপি-মন্ত্রী যেই হোক না কেন এ বিষয়ে অভিযুক্তকারীদের কাউকে ছাড় দেয়া হবে না বলে জানান গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন।

খাল দখলমুক্ত করার পাশাপাশি ভুমিদুস্যদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।

 

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author

Leave a comment