দেশের ব্যাংকিং খাত এখন এতিম আর রক্ষকরা তাদের ওপর অত্যাচার করছে, এমনটাই মনে করে সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ, সিপিডি। পরিস্থিতি উত্তরণে স্বাধীন কমিশন গঠন ও সতর্ক মুদ্রানীতি প্রনয়নের পরামর্শ তাদের। রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে, আসছে বাজেটে রোহিঙ্গাদের জন্য আলাদা অর্থ বরাদ্দ করা, সামাজিক নিরাপত্তাকে গুরুত্ব দেয়া, রাজস্ব ব্যবস্থার সংস্কারের প্রস্তাব তুলে ধরে সংস্থাটি। নির্বাচনী বছরের বাজেটে অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতার ওপর গুরুত্ব দেয়ার আহবানও জানায় সিপিডি।

২০১৮-১৯ অর্থ বছরের বাজেটের জন্য সুপারিশমালা তুলে ধরতেই সিপিডি’র এ সংবাদ সম্মেলন। সংস্থাটি বলছে, চলতি অর্থবছরে প্রায় ৫০ হাজার কোটি টাকা রাজস্ব আদায় কম হবে। এছাড়া অনাদায়ী রাজস্ব আদায়, প্রণোদনা পুনর্বিবেচনা, কর্পোরেট কর নিয়ে সতর্ক সিদ্ধান্ত নেয়ার পরামর্শ দেয় সিপিডি।

আসছে বাজেটে নির্বাচনী ডামাডোলে দরিদ্র মানুষকে বঞ্চিত করা যাবে না।  এলডিসি উত্তরণ পরবর্তী সময়ে এনজিও কার্যক্রম চালিয়ে যেতে গঠন করতে হবে এসডিজি ট্রাস্ট ফান্ড। এছাড়া প্রত্যাবাসন বিলম্বিত হওয়ায় রোহিঙ্গাদের জন্য বরাদ্দেরও প্রস্তাব তাদের।

ব্যাংকিংখাতের বিশৃঙখলা নিয়ন্ত্রণে স্বাধীন কমিশন গঠনের প্রস্তাব করে, নিজেদের পর্যবেক্ষণও জানায় সিপিডি। সংস্থাটির মতে, দেশে আয়হীন কর্মসংস্থান বাড়ছে; বাড়ছে শিক্ষিত বেকারের হার। কালো টাকা সাদা করার বিপক্ষে নিজেদের অবস্থানের কথাও জানায় সিপিডি।

 

 

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author

Leave a comment