সংসদের আগামী বাজেট অধিবেশনে পাশ হতে যাচ্ছে, যুদ্ধাপরাধীদের সম্পদ বাজেয়াপ্ত সংক্রান্ত আইন। এর মধ্য দিয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি রাষ্ট্রের দায়বদ্ধতা অনেকটাই কমবে বলে মনে করেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ। আর অ্যাটর্নি জেনারেল বলছেন, বাংলাদেশর মাটিতে স্বাধীনতাবিরোধীদের সম্পদথাকার কোন অধিকার নেই।

মুক্তিযুদ্ধের পুরো নয় মাস বাংলার মুক্তিকামী মানুষের ওপর বর্বর নির্যাতন চালায় পাকিস্তানি বাহিনী। হত্যা, গণহত্যা, ধর্ষণ, লুটপাট কিম্বা জোর করে ধর্মান্তরিতকরণ, কোনকিছুই বাদ রাখেনি তারা। এসব অপকর্মে তাদের দোসর ছিলো স্বাধীনতাবিরোধী এদেশেরই কিছু মানুষ, যারা বর্তমানে যুদ্ধাপরাধী হিসেবে চিহ্নিত।

এসব যুদ্ধাপরাধীর স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত সংক্রান্ত একটি প্রস্তাব, জাতীয় সংসদে সর্বসম্মতিতে পাস হয় ২০১৬ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর। সম্প্রতি এক অনুষ্ঠানে আসছে বাজেট অধিবেশনেই আইনটি পাশের উদ্যোগ নেয়া হবে বলে জানান  আইনমন্ত্রী।

আর রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকতার মতে, বাংলার মাটিতে যুদ্ধাপরাধীদের সম্পদ থাকার কোন অধিকার নেই। যুদ্ধপারাধীদের সম্পদ বাজেয়াপ্তের মধ্য দিয়ে, রাষ্ট্র কিছুটা হলেও দায়মুক্ত হবে, এমনটাই মত ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ।

বাজেয়াপ্ত অর্থের একটা অংশ অস্বচ্ছল মুক্তিযোদ্ধা ও বীরাঙ্গনাদের কল্যাণে ব্যয়ের পরামর্শও দেন তিনি।

 

 

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author

Leave a comment